দৈনিক সান্তাহার

বর সাজা হলো না সান্তাহারের বাদলের

সান্তাহার ডেস্ক :: বগুড়ার সান্তাহার পৌর শহরের লকু পশ্চিম কলোনী মহল্লার মৃত জাফরের ছোট ছেলে বাদল হোসেন (৩০) বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম হয়েছে শৈসবে। নানী আর সৎ মায়ের কাছে বেড়ে উঠেছে বাদল ও তার বড় ভাই মুক্তার হোসেন।বাদল পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন আউট সোর্সিংয়ের নানা ধরনের কাজ। ইতিমধ্যে বিবাহ উপযুক্ত বাদলের জন্য বেশ কয়েক জায়গায় বিয়ের জন্য কণেও দেখা হয়েছে। আর বিয়ের প্রস্তুতি হিসেবে ঘর সাজাচ্ছে তার পরিবার। ঘরের পুরাতন জিনিস বদলে নতুন, অপরিষ্কার ঘরকে পরিষ্কার করাসহ নানা কাজে ব্যাস্ত তারা।

বিয়ের এ প্রস্তুতিই যে তার জীবনে কাল হয়ে দাঁড়াবে কে জানে সে কথা! বাদলের পরিবারের লোকজন ঘরে ছাড়পোকা মারতে বেশ কিছু ন্যাপথালিন গুড়া করে শয়ন ঘরের বিছানাসহ বিভিন্ন স্থানে ছিটিয়ে দিয়ে দরজা-জানালা বন্ধ করে রাখে। প্রতিদিনের ন্যায় গত রোববার বাদল অফিসের কাজ শেষে দুপুরের খাবার খেতে আসে। কাজের ক্লান্তি কাটাতে ঘরের দরজা খুলেই বিশ্রাম নেয়।

কিন্তু ঘরে ন্যাপথালিন গন্ধে হাওয়া-বাতাস যেন বিষময় ছিলো। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হয় স্বাসকষ্ট, এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে বাদল।পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি জানতে পেরে জরুরী ভিত্তিতে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিলে ওই দিন বিকেল ৫ টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। তার এমন অকাল মৃত্যুতে একমাত্র বড় ভাই মুক্তার হোসেন ও আত্মীয়-স্বজনরা যেন শোকে কাতর হয়ে পড়েন।আর ছোট ভাইকে বর সাজিয়ে কনের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্নও ভেঙে যায় মুক্তারের। সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আব্দুল ওয়াদুদ তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

সান্তাহার ডটকম/ ২৫ নভেম্বর ২০১৯/এমএম