দৈনিক সান্তাহার

মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ রক্ষনাবেক্ষনের ফান্ড থাকা দরকার : সাজেদুল ইসলাম চম্পা

সান্তাহার ডেস্ক :: গত চারমাস ধরে সান্তাহার মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভের ১১ সবুজ বাতি বন্ধ। জ্বলছে ১৩টি বাতির মধ্যে মাত্র দুটি। সান্তাহার মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভের নকশাকার সাজেদুল ইসলাম চম্পা নিজের ফেসবুকে এই বিষয়ে একটি পোস্ট শেয়ার করছেন। পাঠকদের জন্য পোস্টটি সান্তাহার ডটকম প্রকাশ করছে-

‘দেখে মনে করছেন হয়তো করোনাক্রান্ত স্মৃতিস্তম্ভের ছবি এটি। ১৩টি বাল্বের ১১টিই বন্ধ। হ্যাঁ, নিজের ব্যার্থতার দায়ভার নিয়েই বলছি। গত চারমাস হলো সান্তাহারের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভের এই হাল। এর আগেও দু একটা করে বাল্ব কেটে যেতো সারা হতো। আসলে এটা রক্ষনাবেক্ষনের একটা ফান্ড থাকা দরকার। এখন যেটা সমস্যা সেটা হলো নির্মাণের সময় এই পাইপগুলোর ভেতর দিয়ে যে তারাগুলো ব্যবহৃত হয়েছিল তা নষ্টপ্রায়। লাইন করা ছিল আন্ডারগ্রাউন্ড। টাইলস চটিয়ে সেগুলো আবারঠিক করতে হবে। সব মিলিয়ে ২০/৩০ হাজার টাকার বিষয়। আমার ব্যক্তিগত সামর্থ্য এতোটা নেই। এখন কারো কাছে এসব বিষয়ে চাঁদা নিতে গেলে তারা বা কিছু সমালোচক বাঁকা চোখে দেখে। দেশের প্রায় সব জাতীয় দৈনিক পত্রিকা, অনেকগুলো টেলিভিশনে প্রতিবেদন প্রচার করার পরেও সরকারি কোনো সহায়তা পাইনি। একটা শহরকে পরিচিত করার মতো একটা স্থাপনা আমরা নির্মান করেছি, সকল দায়িত্ব কি আমাদেরই? হ্যাঁ, রেলগেটের একটা আয় থাকে। সেটা হয়তো স্মৃতিস্তম্ভটিতে জন্য নয়। সেটা নেতা পাতি নেতা সাংবাদিক রেলওয়ে প্রশাসন, ষ্টেশান মাষ্টার লোকাল মাস্তানদের জন্য। আর এখানকার মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ব্যস্ত অন্য কাজ নিয়ে। প্রতিদিন স্মৃতিস্তম্ভের সামনে ভিড় করে শত শত R15, FZ, pulsure মোটরসাইকেল। আর সান্তাহারবাসী সকলেই সহবস্থান করে করোনাক্রান্ত স্মৃতিস্তম্ভ নিয়ে।’

সান্তাহার ডটকম/২৮ আগস্ট ২০২০ইং/এমএম