গুণীজন

সান্তাহারের গর্ব এম আজিজুর রহমান

সালমান রহমান মিকেল :: তিনি আমাদের সান্তাহারের গর্ব। তাকে নিয়ে আমরা গর্ববোধ করি। তিনি মরহুম এম আজিজুর রহমান। ১৯৪১ সালের ৯ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন এবং মারা যান ২০১৮ সালের ১৬ জুন। তিনি ছিলেন কানাডার বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী, অধ্যাপক, গবেষক এবং উদ্ভাবক। বিএসসি (ইঞ্জিনিইয়ার) বাংলাদেশ। এমএএসসি (টরন্টো), পিএইচডি (কার্লেটন), এফআরএসসি, এলএফআইইই, এফআইইটিম, এফইআইসি, এলএফআইইবি, এফসিএই, সিইঞ্জপিইং। মরহুম এম আজিজুর রহমান ৯ জানুয়ারি ১৯৪১ সালে জন্মগ্রহন করেন আমাদের প্রাণের শহর প্রিয় শহর সান্তাহারে। তিনি আমাদের গর্ব।

শিক্ষা জীবনের পথ চলা : তিনি সান্তাহার বিপি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৫৬ সালে মাট্রিকুলেসন (SSC) পাস করেন এবং ১৯৫৮ সালে রাজশাহী কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ইন্টারমিডিয়েট (HSC) পাস করেন। ১৯৬২ সালে তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশলী ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে তড়িৎ প্রকৌশলী বিভাগ (BUET-Department of Electrical Engineering) থেকে স্নাতক (BSC) পাস করেন। তার দীর্ঘ ৭৭ বছর জীবনের শুরুটা আমাদের এই ছোট্ট প্রাণের শহর থেকেই যেখানে তার শিকড় গাঁথা, তারপর একের পর এক সফলতার হাতছানি দেয় তার দীর্ঘ শিক্ষা ও পেশাগত জীবনে, জীবনের প্রতিটা পদক্ষেপে বা সিদ্ধান্তে কোথাও আর থেমে থাকতে হয়নি তাকে। কতটা বৈচিত্র্যময় আর রোমাঞ্চকর দিয়ে ঘিরে থাকে প্রতিটা মানুষের জীবন। মরহুম এম আজিজুর রহমান ও তাদের থেকে আলাদা নন।

উচ্চতর জীবনে পদার্পণ : ঠিক সর্ব সাধারনের মতো তিনিও উচ্চতর শিক্ষার লাভের জন্য হয়তোবা অনেক স্বপ্ন দেখতেন আর সেই স্বপ্নকে বাস্তব করার জন্য তার চেষ্টার কমতি ছিলো না, তার কারণেই তিনি সুদূর ক্যানাডাতে ইউনিভার্সিটি অব টরন্টো থেকে তড়িৎ প্রযুক্তিবিদ (ডিপার্টমেন্ট অব ইলেকট্রিক ইঙ্গিনিয়ার) হিসেবে এমএএসসি শেষ করেন আর ক্যানাডা কার্লটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৫ থেকে ১৯৬৮ সালের দিকে পিএইচডি সম্পূর্ণ করেন “কানাডিয়ান কমনওয়েলথ বৃত্তি” এর উপর।

পেশাগত জীবনের পথে : তার জীবনের উচ্চতর শিক্ষা শেষ করে আবার বাংলাদেশে ফিরে আসেন এবং ১৯৬২ সালের দিকে বাংলাদেশ প্রকৌশলী ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে তড়িৎ প্রযুক্তিবিদ বিভাগে (ডিপার্টমেন্ট অব ইলেকট্রিক ইঙ্গিনিয়ার) প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। তার অক্লান্ত পরিশ্রমের কারনেই ১৯৬৯ সালে তিনি সহকারী অধ্যাপক হিসাবে পদোন্নতি পান এবং ঠিক তিন বছর পর সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ১৯৭২ সালে আবার পদোন্নতি পান সে থেকে আর কোথাও থেমে থাকতে হয়নি তার জীবনের লক্ষে পৌছাতে ঠিক ১৯৭৫ সালে অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। কে স্বপ্ন দেখতে পছন্দ করে না, আমরা সকলেই স্বপ্ন দেখি ও সকলেই জীবনের ভবিষ্যৎ লক্ষ্য ভেবে রাখে কেউ সফলতা অর্জন করে আবার কেউ সফলতার দ্বারপ্রান্তে থেকেও মৃত্যু পর্যন্ত কাটিয়ে দেই, আর যদি সেই স্বপ্নের লক্ষে পৌঁছানোর জন্য সৎ সাহস, মহান সৃষ্টিকর্তার অপর অন্ধ বিশ্বাস আর সেসঙ্গে সৎ চিন্তার অফুরন্ত মনোবল ও অধ্যবসায় যদি থাকে তখন হয়তোবা সৃষ্টিকর্তা তার বান্দার ইচ্ছে অপূর্ণ রাখে না। ঠিক মরহুম এম, আজিজুর রহমান ও হয়তোবা তার জীবনের সব স্বপ্নকে বাস্তবতার রুপ লাবন্ন্যে রঙিন করেছেন, হয়তোবা তার আরো অনেক স্বপ্ন এখনো অপূর্ণ রয়েছে।

পেশাগত জীবনের সফলতার গল্প : এই ক্ষুদ্র জীবনে তিনি প্রচুর পেশাদার পুরষ্কার ও সফলতার সঙ্গে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সহকর্মী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বৈদ্যুতিক মোটর এবং মেশিনের ক্ষেত্রে অসংখ্য আন্তর্জাতিক পেশাদার পুরষ্কার অর্জন করেছিলেন। ড. মো. আজিজুর রহমান ১৯৭৬ সালে মেমোরিয়াল বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন এবং মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ফলিত বিজ্ঞান অনুষদে ছিলেন। তিনি একজন অত্যন্ত সম্মানিত অধ্যাপক এবং বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা অধ্যাপক (১৯৯৩ সাল থেকে) এবং ৫০ বছরের শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা অর্জন করেছিলেন। ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৫ সালে তিনি আইল্যান্ডহোভেন প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নেদারল্যান্ডসে “পরিদর্শন গবেষণা সহকর্মী” হিসেবে ছিলেন। এর মাঝেই ১৯৭৪-১৯৭৫ সালে ইংল্যান্ডের ইম্পেরিয়াল কলেজ অব লন্ডন থেকে ন্যুফিল্ড সহকর্মী ছিলেন। ১৯৭৫ এবং ১৯৮৪-১৯৮৫ সালে ইউনিভার্সিটি অব টরন্টো থেকে পরিদর্শন সহকর্মী, ১৯৮৮ সালে ইউনিভার্সিটি অব হংকং থেকে “লেউং ওয়াই সান সহকর্মী” একই সঙ্গে ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৬ অবধি তিনি টেশমন্ট কনসালট্যান্ট লিমিটেড উইনিপেগে ছিলেন ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ১৯৭৬ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি কানাডার সেন্ট জনস, নিউফাউন্ডল্যান্ডের মেমোরিয়াল বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন যেখানে তিনি বর্তমানে প্রকৌশল ও বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা অধ্যাপকের র‌্যাঙ্ক ধরে ছিলেন। মরহুম ড. রহমান অনেক কম্পানির পক্ষে তিনি আবাসিক পরামর্শদাতা হিসাবে কাজ করেছেন যেমন পূর্ব নিউ ইয়র্কের একটি শিল্প শহর আলবানির উত্তর-পশ্চিমে জেনারেল ইলেকট্রিক কোম্পানি শেনেকটাডি এবং পিটারবারো অন্টারিও কানাডার আয়রন অরে সংস্থা এবং নিউফাউন্ডল্যান্ড ও ল্যাব্রাডর হাইড্রো। তার দীর্ঘ ৭৭ বছর জীবনের মাঝে ৪৩ বছর শিক্ষকতা অভিজ্ঞতা ও ১০ বছর বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে গবেষণার অভিজ্ঞতা সঙ্গে পূর্ণকালীন/সমকালীন শিল্প/ইউটিলিটি/পরামর্শ অভিজ্ঞতা সফলতার সঙ্গে অতিবাহিত করেছেন। ১৯৯১-১৯৯২ ও ১৯৯৯-২০০০ সালে নানিয়াং টেকনোলজিকাল ইউনিভার্সিটি থেকে তিনি ভিজিটিং প্রফেসরশিপ গ্রহণ করেছেন সেসঙ্গে ১৯৯২ সালে টোকিও ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি এবং ১৯৯৯ সালে টোকিও বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয় থেকেও। তার প্রকাশিত ৫১৮ প্রবন্ধের একটি বিশাল ঝুলি আছে। তিনি অন্টারিও এবং নিউফাউন্ডল্যান্ডে নিবন্ধিত পেশাদার প্রকৌশলী, আইইই (IEE) জাপানের সদস্য, আইইই (IEE) সহকর্মী ইউকে (UK). ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের আজীবন সহকর্মী এবং কানাডার ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের সহকর্মী রয়েছেন।
মরহুম ডা. রহমান ২০০৫ সালে ১৮তম “খয়ারিজমি আন্তর্জাতিক পুরষ্কার” সহ অসংখ্য আইইইই এবং অন্যান্য পেশাদার পুরষ্কার পেয়েছেন। ২০০৪ সালে আইইইই পাওয়ার ইলেকট্রনিক্স সোসাইটি থেকে আইইইই উইলিয়াম “ই. নেওয়েল অ্যাওয়ার্ড” অর্জন করেছিলেন।

পুরস্কারের ঝুলিতে যা যা আছে : মরহুম ডা. রহমানের একটি অত্যন্ত সজ্জিত ক্যারিয়ার ছিল এবং বৈদ্যুতিক মোটর এবং মেশিনের ক্ষেত্রে অসংখ্য আন্তর্জাতিক পেশাদার পুরষ্কার অর্জন করেছিলেন। তার গবেষণার আগ্রহগুলো তার কর্মজীবন জুড়ে বিস্তৃত ছিল।
· GE Centennial Invention Disclosure Award, 1978
· IEEE Outstanding Students Counselor’s Award, 1980
· IEEE Notable Service Award for contributions in IEEE and Engineering Professions, 1987
· IEEE Industry Application Society’s Outstanding Achievement Award,1992
· Association of Professional Engineers and Geoscientists of Newfoundland Merit Award,1994
· IEEE Canada Outstanding Engineering Educator’s Medal,1996
· IEEE Third Millennium Medal, 2000
· IEEE Cyril Veinott Electromechanical Energy Conversion Award from PES, 2003
· IEEE William E. Newell Power Electronics Award, 2004
· Khwarizmi International Award, 2005
· IEEE Dr. Ing Eugene Mittelmann Outstanding Award from Industrial Electronics Society, 2007
· IEEE Richard H. Kaufmann Technical Field Award. In 2008
· IEEE Power and Energy Society (PES) Distinguished Service Award, 2008
· A.D. Dunton Distinguished Alumni Award of Carleton University, 2008
· The Institution of Engineers (IEB) Gold Medal, 2011
· Prince Albert II Medal (2012) at the seventh Exposition and Conferences Internationals Vehicles Ecologiques and Energies Renouvelables (International Conference and Exhibition on Ecological Vehicles and Renewable Energies) in Monaco.
· Fellow of the Royal Society of Canada (FRSC) Award, 2015

সূত্র : https://en.wikipedia.org/wiki/M._Azizur_Rahman
https://www.ieee.ca/diglib/mem_lib/2005/rahman/index.htm?fbclid=IwAR0vFuZjkw4YL7f6JP9d0iO5W0HjunplZ-uHzFZJZcAHctMQNbsrBDtz0cY
https://www.mun.ca/engineering/about/people/azizurrahman.php

সান্তাহার ডটকম/২০ জুন ২০২০ইং/ইএন

About the author

Santahar Team

Add Comment

Click here to post a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *